রসুনের উপকারিতা | রসুন খাওয়ার সিক্রেট টিপস জেনে নিন

রসুন বা গার্লিক প্রায় পাঁচ হাজার বছর ধরে মসলা খাদ্য ও ওষুধ হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। বর্তমান তথ্য অনুযায়ী, রসুনকে স্বাস্থ্য রক্ষার বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। ম্যাজিকের মতো কাজ করে এখনও রসুন, রসুনের গুণাগুণ জানলে চমকে যাবেন আপনিও।

সুগার, হৃদরোগ, হাই ব্লাড প্রেসার ও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে রসুন। এছাড়া প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে এবং আপনার যৌন শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এরকম অনেক উপকারিতা আছে রসুনের, তাই আজকের এই পোষ্ট টি তে আমরা জানবো রসুন খাওয়ার উপকারিতা কী, সকালে খালি পেটে রোজ এক কোয়া রসুন কেন খাওয়া উচিত আর রসুন খাওয়ার সঠিক নিয়ম কি, এই সব কিছু জানতে লেখাটি শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন, তাহলে রসুন খাওয়ার উপকারিতা বিষয়ে একটি পরিষ্কার ধারণা পেয়ে যাবেন। আর ভিডিওর শেষে রসুন খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে একটি সিক্রেট শেয়ার করব যা সম্ভবত আপনি জানেন না।

রসুনের এত উপকারিতা যে রসুনকে মর্তের অমৃত বলা হয়, রসুনের বিজ্ঞানসম্মত নাম অ্যালিয়াম স্যাটিভাম এছাড়াও বিভিন্ন প্রাদেশিক নামগুলি হল লাসুনা, লাশউন বালোচি, মাহারু লেসুন ইত্যাদি। দুরকমের রসুন পাওয়া যায় প্রথমটি হল এককোয়া বিশিষ্ট রসুন তবে এর দাম খুব বেশি৷ আর দ্বিতীয়টি হল বহু কোষ বিশিষ্ট রসুন, এটি সহজলভ্য এবং এর দামও কম, তবে এর গন্ধটা একটু বেশি ঝাঁঝালো।

রসুনের উপকারিতা

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করে

এ বার আমরা জেনেই রসুনের প্রথম উপকারিতা ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করে। সুগার হল একগুচ্ছ রোগের সমাহার এই রোগের ফলে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যায়। ইনসুলিনের অসম ক্ষরণের ফলে মূলত এই রোগ হয়ে থাকে। বিজ্ঞানীদের মতে, রসুনের মধ্যে অ্যালিসিন নামে একটি কম্পাউন্ড থাকে যা ইনসুলিনের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়। তার ফলে সুগার কমে খুব সহজে। এক্ষেত্রে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই থেকে তিন কোয়া রসুন খেতে হবে চিবিয়ে খেতে না পারলে কুচি কুচি করে গিলে খেতে পারেন।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে

রসুনের দ্বিতীয় উপকারিতা হল কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে। আপনারা এলডিএল কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে সেক্ষেত্রে সারা জীবনের জন্য কোলেস্টেরলকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইলে প্রতিদিন দুই কোয়া করে রসুন খালি পেটে চিবিয়ে খাওয়ার অভ্যাস । করুন মাঝে মাঝে দু একদিন বাদ গেলেও ক্ষতি নেই। রসুন লো ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন অর্থাৎ এলডিএল ও ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে সাহায্য করে। এবং হাই ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন অর্থাৎ এইচডিএল বাড়াতে সাহায্য করে। চিকিত্সা বিজ্ঞানীদের মতে, রসুন লিভারে কোলেস্টেরল সংশ্লেষ কমিয়ে দেয় এবং কোলেস্টেরলকে শরীর থেকে বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে।

হৃদরোগের সম্ভাবনা কমায়

এবার আসা যাক রসুনের তৃতীয় উপকারিতা হৃদরোগের সম্ভাবনা কমায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মত অনুযায়ী বিশ্বের মৃত্যু সর্ববৃহৎ কারণ হল হৃদরোগ। দুই হাজার এগারো সালের রিপোর্ট অনুযায়ী সেভেন্টিন পয়েন্ট থ্রি মিলিয়ন মানুষ মারা যায় হৃদরোগে। যার ৮০% উন্নয়নশীল দেশের মানুষ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মত অনুযায়ী ২০৩০ সালের মধ্যে ২৩.৬ মিলিয়ন মানুষ প্রাণ হারাতে পারেন হৃদরোগে। তাই আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে প্রতিদিন সকালে দুই কোয়া রসুন খেতে পারেন। কারণ রসুনের মধ্যে সালফার ও মন সালফার বা একটি মিশ্রণ থাকে যা হৃদরোগ প্রতিরোধ করতে ।পারে বর্তমানে বৈজ্ঞানিক তথ্য অনুযায়ী রসুন অনিয়মিত হৃদস্পন্দন মায়োকার্ডিয়াল এর দুর্বলতা অ্যাথেরোস্ক্লেরোসিস প্রভৃতি রোগে ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়া কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।

প্রেশার নিয়ন্ত্রণ করে

এবার আসা যাক রসুনের চতুর্থ উপকারিতা প্রেশার নিয়ন্ত্রণ করে। প্রেশার বলতে এখানে হাই প্রেশার বা হাইপার টেনশনের কথা বলা হচ্ছে সারা পৃথিবীতে থার্টিন পয়েন্ট ফাইভ পার্সেন্ট মানুষ মারা যায় উচ্চ রক্তচাপ। অতি সম্প্রতি চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের তথ্য অনুযায়ী কুড়িটি গবেষণার উপর ভিত্তি করে রসুনকে একটি উত্তম হাই ব্লাড প্রেশারের ওষুধ হিসেবে ধরা হয়েছে। তবে রোগটি প্রবল আকারে দেখা দেওয়ার পর রসুন খাওয়া আরম্ভ করলেন পারদের মাত্রার মতো তরতর করে নীচের দিকে নেমে যাবে সে আশা করবেন না। অন্য ওষুধ চলবে ব্লাড প্রেসারের সাংঘাতিক অবস্থাকে কন্ট্রোল করার জন্য সেই সঙ্গে রসুন খেতে হবে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে। দুই থেকে তিন কোয়া রসুন চিবিয়ে খেতে পারেন না পারলে কুচি কুচি করে গিলে খেতে পারেন। হাই ব্লাড প্রেশার ভাল ভাবে আয়ত্তে আসার পর কেবলমাত্র রসুন খেয়ে রোগটিকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে

এবার আসা যাক রসুনের পঞ্চম উপকারিতায়, প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে। গবেষণায় দেখা গেছে, খালি পেটে রসুন খেলে তা শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে। তাই আপনাদের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে দূর করতে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেতে পারেন, যা ম্যাজিকের মতো আপনার দেহের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করবে।

যৌনশক্তি বৃদ্ধি করে

এর পর আসা যাক রসুনের ষষ্ঠ উপকারিতায় যৌনশক্তি বৃদ্ধি করে। পুরুষের যৌন অক্ষমতার ক্ষেত্রে রসুন খুবই ভালো ফল দিয়ে থাকে। যৌন ইচ্ছা ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে এর ব্যবহার খুব কার্যকরী। কোনও রোগের কারণে বা কোনও দুর্ঘটনার কারণে কিংবা বয়সের জন্য আপনার যৌন ইচ্ছা কমে গেলে এটি আপনাকে তা ফিরে পেতে সাহায্য করে। রসুন আপনাদের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে আর টেস্টোস্টেরন মেল সেক্স হরমোন নামে পরিচিত। আমাদের বাজে খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান, অ্যালকোহল, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন ও শারীরিক পরিশ্রমের অভাবে দিন দিন হেলদি শুক্রাণুর পরিমাণ কমে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে হেলদি শুক্রাণু তৈরিতে রসুনের জুরি মেলা ভার। তাই প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে যৌন অক্ষমতা দূর হবে এবং আপনার যৌনশক্তি বৃদ্ধি পাবে।

আমবাত নিয়ন্ত্রণ করে

এরপর আসা যাক রসুনের সপ্তম উপকারিতায়, আমবাত নিয়ন্ত্রণ করে। আমবাত অর্থাত্ রিমোটের আর্থ্রাইটিস রোগে রসুন বেশ কার্যকরী। যদি আপনার গাঁটে গাঁটে ব্যথা, সকালের দিকে হাত পায়ের আঙুলে আড়ষ্টভাব প্রভৃতি থাকে, সে ক্ষেত্রে অন্য ওষুধের সঙ্গে প্রতি দিন দুই থেকে চার কোয়া রসুন খাওয়ার অভ্যাস করুন। রসুন কুচি কুচি করে কেটে রাখুন দশ থেকে পনেরো মিনিট পর সেগুলিকে খালি পেটে চিবিয়ে খেয়ে নিন। তাঁর দশ থেকে পনেরো মিনিট পর জলখাবার খেয়ে নিতে ।পারেন আর এতে যদি কারও অসুবিধা হয় তাহলে জলখাবার খাওয়ার ত্রিশ মিনিট পর রসুনের গিলে খেয়ে নিন। এ ছাড়াও গাঁটে গাঁটে ব্যথা ও যন্ত্রণা উপশমের জন্য রসুনের তেল লাগাতে পারেন।

দাঁতের যন্ত্রণা কমায়

এরপর আসা যাক রসুনের অষ্টম উপকারিতা দাঁতের যন্ত্রণা কমায়। দাঁতের যন্ত্রণা কমাতে রসুন বেশ কার্যকরী। রসুন থেঁতো করে দাঁতের গোড়ায় লাগিয়ে হালকা ভাবে মাসাজ করলে উপকার পাওয়া যায়। আর হঠাৎ করে যদি দাঁতের যন্ত্রণা দেখা যায় বা মারি ফুলে যায় তাহলে এক কোয়া রসুন চিবিয়ে দাঁতের গোড়ায় লাগিয়ে রাখুন। ত্রিশ মিনিট পর থেকে যন্ত্রনা ও ব্যথা কমতে শুরু করবে। এ ছাড়া পায়ে সারাতে রসুন ভালো কাজ করে।

যক্ষা নিরাময় করে

এরপর আসা যাক রসুনের নবম উপকারিতায় যক্ষা নিরাময় করে। যক্ষ্মা রোগের অত্যাধুনিক ওষুধ বার বার ব্যবহার হচ্ছে, বারবার ভাল হচ্ছে কিন্তু রোগী আবার যক্ষা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। আবার কোনও ক্ষেত্রে দেখা যায় ওষুধ আর কাজ হচ্ছে না সেক্ষেত্রে রোগীর অবস্থা ক্রমশ জটিল হয়ে ওঠে। এরকম ক্ষেত্রে আধুনিক চিকিৎসার সঙ্গে সঙ্গে রসুন খাওয়া যেতে পারে। এর পর রোগ সারলে আবার রোগ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায়। এ ক্ষেত্রে রসুনের রস পনেরো থেকে কুড়ি ফোঁটা সামান্য জলে মিশিয়ে দিনে তিন থেকে চারবার খাওয়ানো যেতে পারে।

ক্যানসার প্রতিরোধ করে

এরপর আসা যাক রসুনের দশম উপকারিতায়, ক্যানসার প্রতিরোধ করে। বর্তমান সময়ে বহু মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন পুরুষ ও মহিলাদের ক্যানসার দিন দিন ভয়ংকর আকার ধারণ করছে। সেক্ষেত্রে নানা ভাবে প্রমাণিত হয়েছে যে রসুন ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করে এবং নিয়মিত রসুন খেলে ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায়। রসুন ঠোঁট মুখ পরিবারতন্ত্র, স্তন ফুসফুস: কোলন ও জয়ের মুখ প্রভৃতি ক্যানসারে ভালো কাজ করে। কারণ রসুন ক্যানসার কোষের বিভাজনকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। এছাড়াও রসুনের শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর ফ্রি র্যাডিক্যালস গুলিকে ধংস করে।

রসুন খাওয়ার সিক্রেট টিপস

এখন রসুন খাওয়ার সিক্রেট টিপস আসা যাক রসুন কাটার পর খোলা জায়গায় রেখে চৌদ্দ মিনিট পরে কাঁচা খেতে পারেন, অথবা তরকারিতে ব্যবহার করতে পারেন৷ কিন্তু প্রশ্ন হল কেন কারণ রসুনের মধ্যে জ্বালা সৃষ্টিকারী সালফোনিক অ্যাসিড দ্রুত ভেঙে গিয়ে অ্যালিসিনে পরিণত হয়। প্রতি ছয় মিনিট ত্রিশ সেকেন্ড অন্তর তিরিশ সেকেন্ড ধরে গুণগত মান বৃদ্ধি করে, প্রতি সাত মিনিটে একবার আর চৌদ্দ মিনিটে দুবার পরিবর্তন ঘটে তাই রসুন কাটার পর খোলা জায়গায় রেখে চৌদ্দ মিনিট পর ব্যবহার করতে পারেন।

এই লেখাটি তে রসুনের দশটি উপকারিতা বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে এছাড়াও রসুনের প্রচুর উপকারিতা আছে। আর সব শেষে আপনার কাছে ছোট্ট একটি অনুরোধ যদি এই লেখাটি ভালো লাগে তাহলে আপনার পরিচিত মানুষদের সাথে শেয়ার করুন। লেখাটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

Read More: আপেল সিডার ভিনেগার এর উপকারিতা

Sharing Is Caring: