আপেল সিডার ভিনেগার এর উপকারিতা

ওজন কমাতে সাহায্য করে, খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে, এমনকি বদহজম প্রতিরোধ করে পেটের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে, তাই এই জিনিসটি আজকাল খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। হ্যাঁ, ঠিকই শুনছেন আমরা কথা বলছি আপেল সিডার ভিনিগার নিয়ে। আপেল সিডার ভিনিগারে এমন অনেক অজানা উপকারিতা আছে তাই আজকের এই লেখার মাধ্যমে আমরা জানবো আপেল সিডার ভিনিগারের উপকারিতা গুলো কী কী। তায় এই সব কিছু জানতে লেখাটি শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন তাহলেই বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার ধারণা পেয়ে যাবেন।

আপেল সিডার ভিনেগার এর উপকারিতা

ওজন কমাতে সাহায্য করে

প্রথম উপকারিতা হল ওজন কমাতে সাহায্য করে আমাদের দেহের অতিরিক্ত ওজনের জন্য নানা রকম রোগ হতে পারে যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ। আপেল, সিডার, ভিনিগার ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি বেশি খাওয়ার ইচ্ছে দমন করে এবং দেহের মেটাবলিজম রেট বাড়ায়, ফলে ওজন কমে খুব সহজেই। আপনি সকালে খালি পেটে এক গ্লাস গরম জলে দুই টেবিল চামচ লেবুর রস ও এক টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনিগার নিয়ে মিশ্রণটি চামচ দিয়ে নাড়িয়ে নিন তারপর ধীরে ধীরে পান করুন। এই মিশ্রণ নিয়মিত সেবনের খুব দ্রুত ওজন কমে।

মুখের দুর্গন্ধ তাড়াতে সাহায্য করে

আপেল সিডার ভিনিগারের দ্বিতীয় উপকারিতা হল মুখের দুর্গন্ধ তাড়াতে সাহায্য করে। নিয়মিত ব্রাশ ও মাউথওয়াশ ব্যবহার করার পরও মুখে দুর্গন্ধ যাচ্ছে না তাহলে আপনি আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আমাদের মুখের দুর্গন্ধের জন্য দায়ী হল ব্যাকটেরিয়া আর এই ব্যাকটিরিয়াগুলিকে নষ্ট করে আপেল সিডার ভিনিগার। এখন প্রশ্ন হল কীভাবে ব্যবহার করবেন অ্যাপেল সিডার ভিনিগার। প্রতিদিন সকালে আপেল সিডার ভিনিগার দিয়ে কুলিকুচি করে নিতে পারেন তাহলে আপনার মুখে দুর্গন্ধ তো দূর হবেই পাশাপাশি আপনার দাঁত হবে ঝকঝকে সাদা আর আপনার দাঁতের হলদে ভাব দূর হবে খুব সহজ।

খারাপ কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে

আপেল সিডার ভিনিগারের তৃতীয় উপকারিতা হল খারাপ কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। খারাপ কোলেস্ট্রল বলতে আমরা বুঝি এলডিএল অর্থাৎ লো ডেনসিটি লিপোপ্রোটিন। অনেক গবেষণায় দেখা গেছে, আপেল সিডার ভিনিগার খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। জাপানের এক গবেষণা থেকে জানা যায়, আপেল সিডার ভিনিগার খারাপ কোলেস্টেরল সহ ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে সাহায্য করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে অনেকটাই, এই বিষয়ে একটা কথা বলে রাখি সারা পৃথিবীতে প্রতি বছর ক্যানসারে যত মানুষ মারা যান তার থেকেও বেশি মানুষ মারা যান হৃদরোগে।

রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে

আপেল সিডার ভিনিগার চতুর্থ উপকারিতা হল রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। টাইপ টু ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে দেখা যায় রক্তে শর্করা মাত্রা স্বাভাবিকের থেকে বেড়ে যায় । এর পিছনে দুটি কারণ থাকতে পারে৷ প্রথমটি হল ইনসুলিন তৈরি না হওয়া৷ আর দ্বিতীয়টি হল কিন্তু যাঁদের ডায়াবিটিস নেই, তাঁদের ক্ষেত্রেও রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা খুব প্রয়োজনীয় কারণ রক্তে অতিরিক্ত শর্করার জন্য আমাদের নানা রকম রোগ হতে পারে। তাই আপেল সিডার ভিনিগার সেবনের ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা খুব সহজে নিয়ন্ত্রিত হয়। So Vinegar can be useful for people with diabetes free diabetes or those who want Prepare Blood sugar low for Reasons.

বদহজম প্রতিরোধ করে

এর পর আসা যাক আপেল সিডার ভিনিগারের পঞ্চম উপকারিতায় বদহজম প্রতিরোধ করে। যে খাবারগুলো খাওয়ার পর আপনার বদহজম হয়ে যায় তা খাওয়ার আগে এক গ্লাস গরম জলে এক চা চামচ মধু আর এক চামচ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে ত্রিশ মিনিট আগে খেয়ে নিন বদহজম থেকে মুক্তি পাবেন খুব সহজে৷ এছাড়া পেটের সমস্যা দূর করতে অ্যাপেল সিডার ভিনিগার খুব সাহায্য করে৷

ব্রণর সমস্যা দূর করে

এরপর আসা যাক আপেল সিডার ভিনিগারের পরের উপকারিতা ব্রণর সমস্যা দূর করে। ব্রণর সমস্যার একটি ঘরোয়া সমাধান হল আপেল সিডার ভিনেগার। এতে রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান, যা ব্রণকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে এছাড়াও আপেল সিডার ভিনিগারে রয়েছে ম্যালিক অ্যাসিড ও ল্যাকটিক অ্যাসিড যা আমাদের স্কিনকে মোলায়েম এবং কোমল করে এবং ত্বকের পিএইচের মাত্রা ভারসাম্য রক্ষা করে ত্বককে উজ্জ্বল করে।

পায়ের পেশির টান প্রতিরোধ করে

এরপর আসা যাক আপেল সিডার ভিনিগারের সপ্তম উপকারিতা পায়ের পেশির টান প্রতিরোধ করে। আপনার যদি রাতে মাঝেমাঝে পায়ের পেশিতে টান লাগে তাহলে বুঝতে হবে আপনার দেহে পটাশিয়ামের মাত্রা কম আছে। আর আপেল সিডার ভিনিগারে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় পটাশিয়াম এক গ্লাস হালকা গরম জলে দুই টেবিলচামচ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার এক চা চামচ মধু মিশিয়ে সেবন করলে এই সমস্যা থেকে আপনি খুব সহজেই মুক্তি পাবেন।

চুল পড়া প্রতিরোধ করে

এরপর আসা যাক আপেল সিডার ভিনিগারে অষ্টম উপকারিতা চুল পড়া প্রতিরোধ করে। চুলের যত্নে ভিনিগার বেশ উপকারী এর জন্য এক গ্লাস জলে দুই টেবল চামচ অ্যাপল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে নিন৷ এই মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এটি চুলে ব্যবহার করলে তা কন্ডিশনারের কাজ করে ফলে চুল ঝলমলে আর প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে। এ ছাড়া আপেল সিডার ভিনিগার খুশকি দূর করতে সাহায্য করে কেননা এতে রয়েছে অ্যান্টি ফাংগাল উপাদান। এছাড়াও চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে আপেল সিডার ভিনিগার। এর জন্য একটি পাত্রে চার চা চামচ নারকেল তেল আর দু চা চামচ আপেল সিডার ভিনিগার নিয়ে মিক্স করুন। তারপর এই মিশ্রণটি চুলের গোঁড়ায় পাঁচ মিনিট ধরে লাগান। সম্পুর্ণ মাথায় মিশ্রণটি লাগানো হলে কুড়ি থেকে ত্রিশ মিনিট পরে শ্যাম্পু করে ফেলুন। এ ভাবে সপ্তাহ দুই থেকে তিন বার ব্যবহার করতে পারেন। ফলে চুল পড়ে যাওয়া ও চুল পড়া চুলের ঘনত্ব কমে যাওয়ার হাত থেকে সহজেই রক্ষা পাবেন।

এই ছিল আপেল কিছু আপেল সিডার ভিনেগার এর উপকারিতা। আপনি যদি এই গুলো বাদে আরো উপকারিতা জানেন, তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে আমাদের জানান। লেখাটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

Sharing Is Caring: